বাংলাদেশের প্রতি যে দাবি জানালেন ইইউ

মৃত্যুদণ্ড অপরাধ প্রতিরোধ করতে পারে না। সেই সঙ্গে ভুল বিচার হলে তা পরিবর্তন সম্ভব নয়। তাই বাংলাদেশে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড প্রথা বিলুপ্তির দাবি জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। এ বিষয়ে সরকারের প্রতি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন ইইউভুক্ত রাষ্ট্রদূতরা।

রোববার বাংলাদেশে অবস্থিত ইইউ ও ইইউভুক্ত ৮টি দেশের রাষ্ট্রদূত এ বিষয়ে যৌথ বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১০ অক্টোবর ছিল মৃত্যুদণ্ডবিরোধী দিবস। অথচ এ দিবসেই ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। ইইউ এবং ইইউভুক্ত দেশগুলো মৃত্যুদণ্ড সমর্থন করে না এবং বিশ্বব্যাপী মৃত্যুদণ্ড প্রথা বিলোপে কাজ করছে। মৃত্যুদণ্ড বিশ্বব্যাপী ঘোষিত মানবাধিকারের লঙ্ঘন। এটি নিষ্ঠুর, অমানবিক ও অবমাননাকর শাস্তি।

 

 

এ বিবৃতি দিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেনজি তিরিংক, ভারপ্রাপ্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার কানবার হোসেন বোর, ইতালির রাষ্ট্রদূত মারিও পালমা, স্পেনের রাষ্ট্রদূত অ্যালভারো ডি সালাস জিমেনেজ ডি অ্যাজকারাতে, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত চারলোটা স্কালাইটার, ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত মেরি-অ্যাননিক বুরডিন, জার্মানির চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স মিখাইল শুলথিস, ডেনমার্কের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স রেফিকা হায়তা, নেদারল্যান্ডসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স জেরন স্টিগস প্রমুখ।

 

jugantor.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *